১১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ - ২৫ মে, ২০২৪ - 25 May, 2024
amader protidin

গ্রামে দারিদ্রের হার কমলেও বেড়েছে শহরে

আমাদের প্রতিদিন
1 month ago
174


আমাদের ডেস্ক:

দেশে গত পাঁচ বছরের ব্যবধানে দারিদে্র্যর হার কিছুটা কমেছে। এ সময়ে গ্রাম এলাকায় কমে এসেছে দারিদে্র্যর হার। তবে বেড়েছে শহরে। এ ছাড়া আগের তুলনায় বৈষম্যের হারও কিছুটা বেড়েছে।

বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং—সানেম এবং ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির গ্লোবাল ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট—জিডিআইয়ের যৌথ গবেষণায় এ চিত্র উঠে এসেছে।

মঙ্গলবার গবেষণার ফলাফল নিয়ে এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মৌলিক চাহিদার খরচের ভিত্তিতে উচ্চ দারিদ্র্যসীমা ব্যবহার করে দেখা যায়, ২০২৩ সালে জাতীয় পর্যায়ে বা সারাদেশে দারিদে্র্যর হার কমে হয়েছে ২০ দশমিক ৭ শতাংশ। যেটি ২০১৮ সালে ছিল ২১ দশমিক ৬ শতাংশ। গত বছর গ্রামীণ এলাকায় দারিদে্র্যর হার কমে হয়েছে ২১ দশমিক ৬ শতাংশ। ২০১৮ সালে যা ছিল ২৪ দশমিক ৫ শতাংশ। তবে দারিদে্র্যর হার বেড়ে গেছে শহর এলাকায়। শহর এলাকায় ২০১৮ সালে দারিদে্র্যর হার ছিল ১৬ দশমিক ৩ শতাংশ। ২০২৩ সালে এ হার বেড়ে হয়েছে ১৮ দশমিক ৭ শতাংশ।

বহুমাত্রিক দারিদে্র্যর ক্ষেত্রেও একই ধরনের প্রবণতা দেখা গেছে। গ্রামীণ বহুমাত্রিক দারিদে্র্যর হার ৩০ দশমিক ৪ শতাংশ থেকে নেমে এসেছে ২৭ দশমিক ৬ শতাংশে। অন্যদিকে শহরাঞ্চলে তা ২০১৮ সালের ১৬ দশমিক ৮ শতাংশ থেকে বেড়ে ২০২৩ সালে দাঁড়িয়েছে ১৮ শতাংশে।

শহর এলাকায় দারিদ্র্য বাড়ার কারণ প্রসঙ্গে সানেম ও গ্লোবাল ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউটের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মৌলিক চাহিদার খরচভিত্তিক দারিদ্র্য এবং বহুমাত্রিক দারিদ্র্য পদ্ধতি উভয় ক্ষেত্রেই শহরে দারিদ্র্য বাড়ার পেছনে দুটি কারণ অনুমান করা যাচ্ছে।

প্রথমত, নাজুক দরিদ্রদের একটি বড় অংশ শহরাঞ্চলে বসবাস করে। তাদের অনেকে দারিদে্র্যর হাত থেকে বাঁচতে অথবা জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব ইত্যাদি কারণে শহরে স্থানান্তরিত হয়েছিল। সম্প্রসারণ মূল্যস্ফীতির মতো উল্লেখযোগ্য ধাক্কাগুলো এই নাজুক লোকদের ফের দারিদ্র্যসীমার নিচে নামিয়ে থাকতে পারে। নাজুক দরিদ্র বলতে দারিদ্র্যসীমার ওপরে থাকলেও যে কোনো বড় অর্থনৈতিক ধাক্কার প্রভাব তাদের দারিদ্র্যসীমার নিচে নামিয়ে দিতে পারে।

দ্বিতীয়ত, শহুরে এলাকাগুলো বিদ্যমান সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিগুলোতে ব্যাপকভাবে আওতাভুক্ত নয়। এর ফলে অনেক শহুরে পরিবার অর্থনৈতিক ধাক্কার প্রতি আরও ঝুঁকিপূর্ণ থাকে। সানেমের প্রতিবেদন অনুসারে, অতি দারিদে্র্যর ক্ষেত্রে জাতীয় পর্যায়, গ্রাম ও শহর সব জায়গাতেই গত পাঁচ বছরে খানিকটা উন্নতি হয়েছে। জাতীয় পর্যায়ে এই অতি দারিদে্র্যর হার ২০১৮ সালের ৯ দশমিক ৪ শতাংশ থেকে কমে ২০২৩ সালে ৭ দশমিক ৯ শতাংশে নেমেছে।

সর্বশেষ

জনপ্রিয়